এক্সক্লুসিভ

যেভাবে এলো ভ্যালেন্টাইন ডে…

ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপন শুরু হয় রোমান সাম্রাজ্যের সময় থেকে। প্রাচীন রোমে ১৪ ফেব্রুয়ারি ছিল রোমান দেবদেবীদের রানী জুনোর সম্মানে পবিত্র দিন। দিনটি অনুসরণ করে পরের দিন ১৫ ফেব্রুয়ারি পালিত হতো লুপারকেলিয়া উৎসবের বিশেষ ভোজ। সে সময় তরুণ এবং তরুণীদের জীবনযাপন ব্যবস্থা ছিল সম্পূর্ণ পৃথক। কিন্তু তরুণদের জন্য ‘দৃষ্টি আকর্ষণ’ নামে একটি ভিন্নধর্মী প্রথা ছিল ‘লটারি’। লুপারকেলিয়া উৎসবের সন্ধ্যায় কাগজের টুকরায় তরুণীদের নাম লিখে একটি পাত্রে জমা করা হতো। সেখান থেকে এক একজন তরুণ একটি করে কাগজের টুকরা তুলত এবং কাগজের টুকরায় যে তরুণীর নাম লেখা থাকত ওই উৎসবের সময় পর্যন্ত সে তাকে তার সঙ্গী হিসেবে পেত। পরে কখনো কখনো ওই দুজনের জুটি পুরো বছর ধরে টিকে থাকত। সম্রাট ক্লডিয়াসের শাসনামলে রোম কয়েকটি জনবিরোধী এবং রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে জড়িয়ে পড়েছিল। হিংস প্রকৃতির ক্লডিয়াস সে সময় তার সেনাবাহিনীতে যথেষ্ট সংখ্যক সৈন্য ভর্তি না হওয়া নিয়ে খুব কঠিন সময় পার করছিলেন। রোমান পুরুষদের তাদের পরিবার ও ভালোবাসা ত্যাগ করে যুদ্ধে না যাওয়াকেই এর প্রধান কারণ হিসেবে দায়ী করেছিলেন তিনি। ফলে ক্লডিয়াস সমগ্র রোমে সব ধরনের বিয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। সে সময় সেন্ট ভ্যালেন্টাইন রোমের একজন ধর্মযাজক ছিলেন। তিনি এবং সেন্ট ম্যারিয়াস খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী তরুণ-তরুণীদের গোপনে বিয়ে দিতেন এবং বিবাহিত যুগলদের সহযোগিতা দিতেন। এ কারণে রোমের ম্যাজিস্ট্রেট তাকে গ্রেফতার করে কারাবন্দী করেন। ভ্যালেন্টাইন বন্দী থাকা অবস্থায় অনেক তরুণ তাকে দেখতে যেত এবং কারাগারের জানালা দিয়ে তার উদ্দেশে লেখা চিরকুট ও ফুল দিয়ে তাদের ভালোবাসা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করত। হাত নেড়ে তাকে জানাত যে, তারা ‘যুদ্ধ নয়, ভালোবাসায় বিশ্বাসী’। এদের মধ্যে একজন ছিল কারারক্ষীর মেয়ে। মেয়েটি তাকে তার প্রতি ভালোবাসা, শ্রদ্ধা, ক্লডিয়াসের নির্দেশ অমান্য করে তরুণ-তরুণীদের গোপনে বিয়ে দেওয়া এবং ভালোবাসায় তার সমর্থনের কথা জানায়। ভ্যালেন্টাইনের শিরশ্ছেদ করে হত্যার দিনে তিনি মেয়েটিকে তার বন্ধুত্ব এবং ভালোবাসার প্রতি বিশ্বাস নিয়ে একটি চিরকুট লিখে রেখে যান। এতে তিনি লিখেছিলেন, ‘লাভ ফ্রম ইওর ভ্যালেন্টাইন’। বিচারকের নির্দেশ অনুসারে সে দিনই তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের এই আত্মত্যাগের দিনটি ছিল ২৬৯ খ্রিস্টাব্দের ১৪ ফেব্রুয়ারি। প্রাচীন রোম ছিল নানা প্রথা ও কুসংস্কারের অন্ধকারে নিমজ্জিত একটি দেশ। এসব প্রথার মধ্যে লুপারকেলিয়া ছিল একটি। এটি অনুষ্ঠিত হতো ফেব্রুয়ারির ১৫ তারিখ। ৪৯৬ খ্রিস্টাব্দে পোপ জেলাসিয়াস সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের সম্মানে লুপারকেলিয়া অনুষ্ঠানের দিন ফেব্রুয়ারির ১৫ তারিখের পরিবর্তে ১৪ ফেব্রুয়ারি নির্ধারিত করেন। পরে এটি সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের নামানুসারে ‘ভ্যালেন্টাইন ডে’ নামে পরিচিতি পায়।

বিশ্বের প্রথম ভালোবাসা দিবস

অনেকে ভালোবাসা দিবস পালন করে। তবে বন্ধুরা, আপনারা কি জানেন, বিশ্বে সবচেয়ে আগে ভালোবাসা দিবস কোন সালে পালিত হয়েছে? তার মানে বিশ্বের প্রথম ভালোবাসা দিবস কখন এবং কোন দেশ থেকে জন্ম নিয়েছে? ইতিহাসের সংশ্লিষ্ট তথ্য থেকে জানা গেছে, বিশ্বের সবচেয়ে আগের ভালোবাসা দিবস ১৫ শতাব্দীর প্রথম দিকে ফ্রান্স থেকে শুরু হয়েছিল। তখন একজন যুবককে আগিন কোর্ট যুদ্ধে জেলে আটক করা হয়েছিল। সে তার স্ত্রীকে খুব মিস করছিল। সে ভালোবাসার চিঠির মাধ্যমে তার ভালোবাসা ও মনের কথা স্ত্রীর কাছে প্রকাশ করেন।

এর প্রায় ২০০ বছর পর গোলাপ ভালোবাসা দিবসের প্রতীক হিসেবে প্রচলিত হয়ে ওঠে। ফ্রান্সের রাজবংশের চতুর্থ হেনরির মেয়ের আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে সব পুরুষ মহিলাকে গোলাপ দিতে শুরু করে। এভাবেই ভালোবাসা দিবসের ধারণা আস্তে আস্তে ইতালি, ফ্রান্স, ব্রিটেন থেকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। তবে এদিন যে শুধু প্রেমিক-প্রেমিকার মধ্যে ভালোবাসা বিনিময় বা প্রকাশ করা যায় তা নয়, বরং এ দিবস বিশ্বের সব ধরনের ভালোবাসা প্রকাশের দিন। ছেলেমেয়ে এদিনে বাবামাকে ভালোবাসা জানিয়ে থাকে, বন্ধু-বান্ধবীরা তাদের মধ্যে পরস্পরের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করে থাকে।

এ দিবসে চকলেট, সুন্দর ফল, হৃদয়ের আকারের মিষ্টি উপহার হিসেবে সাধারণত মানুষের মধ্যে বিনিময় করা হয়। উপহারের মাধ্যমে বড় বা ছোট নির্বিশেষে, ভালোবাসা প্রকাশ করা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *